Tuesday, 25 September 2018
RSS Facebook Twitter Linkedin Digg Yahoo Delicious
সংবাদ শিরোনাম

৭ই মার্চে বাঙালি পেয়েছিল মুক্তির দিশা

ডেস্ক রিপোর্ট :
সাম্প্রদায়িক নীতির ভিত্তিতে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার কয়েক বছরের মধ্যেই স্বপ্নভঙ্গ ঘটে বাঙালি মুসলমানদের। ’৪৭ থেকে ৭১ পর্যন্ত ২৩ বছরের বাংলার ইতিহাস শোষণ, বঞ্চনা, নিপীড়নের ইতিহাস। বাঙালি ’৫২, ৬২, ৬৬, ৬৯-এর নানা পর্যায়ের গণআন্দোলন ও অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে বারবার প্রমাণ করেছে পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালি জনগোষ্ঠী পাকিস্তানি শাসকদের পদানত থাকতে চায় না।

’৭০-এর নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের মধ্য দিয়ে গোটা পাকিস্তানের শাসনভার যখন বাঙালির করায়ত্তে আসার বাস্তবতা তৈরি হলো- তার ন্যায্যতাকে পায়ে দলে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী আওয়ামী লীগ তথা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে টালবাহানা করতে থাকে। মার্চের ৩ তারিখে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত করে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া দেশ নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। সারা বাংলা তখন ক্ষোভে উন্মাতাল। সেই ক্ষোভ-প্রতিবাদ পাক বাহিনী দমানোর চেষ্টা করেছে গণহত্যার মধ্য দিয়ে।

১ মার্চ থেকে এমন কোনো দিন ছিল না যে দিন কোনো বাঙালিকে গুলি করে হত্যা করেনি পাক বাহিনী। ক্ষুব্ধ জনতা তখন আর কেবলই শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে আবদ্ধ রইল না। তারাও বিভিন্ন স্থানে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে শুরু করে। স্বাধিকারের দাবি পরিণত হয় স্বাধীনতার দাবিতে। এমনই প্রেক্ষাপটে পূর্ব বাংলার রাজধানীর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করলেন ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’

ঐতিহাসিক সে ভাষণে বঙ্গবন্ধু মুক্তিকামী বাঙালিকে দিয়েছিলেন মুক্তির দিশা। দিয়েছিলেন সর্বাত্মক প্রতিরোধ গড়ে তোলার নির্দেশ। শুধু তাই নয়, সেদিনের সেই ভাষণের মধ্য দিয়ে তিনি স্পষ্ট করলেন, স্বাধীনতা ছাড়া কোনো মুক্তি নেই বাঙালির। আর লড়াই করেই সেই মুক্তি ছিনিয়ে আনতে হবে। এ লড়াইয়ে রক্ত ঝরবে, রক্ত আরও দিতে হবে, এরপরও মুক্তির কোনো বিকল্প নেই। রেসকোর্সের উত্তাল জনসমুদ্র সেদিন সমবেত স্বরে উচ্চারণ করেছিল- ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধর বাংলাদেশ স্বাধীন করো’। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের নির্দেশনা মেনে বাঙালি মরণপণ লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করেছিল। ছিনিয়ে এনেছিল বিজয়ের সূর্য।  পরিবর্তন
 

বর্তমান সংবাদ/তুহিন



বর্তমান সংবাদ.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

নামাজের সময়সূচী

ওয়াক্ত শুরু জামাত
ফজর ৫-০৬ ৫-৪৫
জোহর ১২-১৪ ১-১৫
আসর ৪-২৩ ৪-৪৫
মাগরিব ৬-০৬ ৬-১১
এশা ৭-১৯ ৮-০০

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ